Section 377 of IPC: Explained in Bengali

Share

What Is Section 377 Of IPC: The Indian Penal Code? Explained in Bengali

IPC 377, ব্রিটিশ শাসনের অধীনে 1860 সালে গঠিত একটি বিরোধী সমকামী আইনকে বোঝায়। ব্রিটিশ আমলে তৈরি 1860 সালের ভারতীয় দণ্ডবিধির 377 ধারায় সমকামী যৌন সম্পর্ককে অপরাধের তকমা দেওয়া হয়েছিল।

ভারতীয় দণ্ডবিধির 377 ধারা একটি উপনিবেশিক যুগের আইন যেটি “অস্বাভাবিক অপরাধ” (Unnatural Offenses) কে বিরোধ করে।

এই আইন যে কোন যৌন ক্রিয়াকলাপকে “প্রকৃতির আইন বিরুধী” বলে গণ্য করে।

এই আইনটি প্রাচীন এবং পুনর্ব্যক্ত হওয়ার কারণে লক্ষ লক্ষ LGBT (Lesbian, Gay, Bisexual, and Transgender) সম্প্রদায়ের কর্মি এবং সদস্য এই সমকামী আইনের বিরুদ্ধে ভারতের সর্বচ্চ আদালতের সাথে লড়াই চালিয়ে যেতে থাকে 2001 সাল থেকে।

2017 সালের জানুয়ারিতে, সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ উপদেষ্টা 377 ধারা হ্রাসের আবেদন শোনার সিদ্ধান্ত নেন। এর পুর্বে 2013 সালে সুপ্রিম কোর্ট 377 ধারা কে আইন বিরোধী বলে ঘোষণা করেছিল। 10ই জুলাই 2017, সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর নেতৃত্বে এই মামলার শুনানি শুরু হয়।

HERE’S WHAT YOU NEED TO KNOW ABOUT SECTION 377 of IPC:

What does Section 377 of IPC say? 

আইপিসি এর 377 ধারায় লেখা “যে ব্যক্তি স্বেচ্ছায় কোন পুরুষ, নারী বা পশুর সাথে প্রকৃতির আদেশের বিরুদ্ধে শারীরিক সম্পর্ক করে, তাকে জীবনের জন্য কারাবাস বা শাস্তিযোগ্য কারাদণ্ড অথবা দশ বছরের কারাদণ্ডের দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে এবং দোষী সাব্যস্ত করা হবে।”

যদিও আইনটি LGBT কে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করে না, যেহেতু “প্রকৃতির আদেশের বিরুদ্ধে” উল্লেখ করা হয়েছে, সেই কারণে সমলিঙ্গ যৌন সম্পর্ক 377 ধারার অধীনে ছিল একদিন।

Does Section 377 of IPC only pertain to homosexuals? 

না। ধারণাটি হচ্ছে যে সেকশন 377 শুধুমাত্র সমকামীদের প্রভাব করে, আসলে আইনটি রাষ্ট্রকে বৈষম্যমূলক যৌন সংসর্গের বিষয়েও হস্তক্ষেপ করতে সক্ষম করে।

Is Section 377 of IPC against the Indian Constitution? 

ধারা 377 এর বিরুদ্ধে সক্রিয় কর্মীরা যুক্তি দেন যে আইনটি ভারতীয় সংবিধানের বিরুদ্ধে।আসলে, আইনটি হ্রাস করার যুক্তিটি ভারতীয় সংবিধানের একাধিক বিভাগের উপর ভিত্তি করে করা হয়েছে।

Article 5 of the constitution states that every person who “was born in the territory of India” shall be a citizen of India, the core argument of LGBT activists is about why their sexual orientation and choice of partner should make them outside the purview of fundamental rights which include Article 14 that states the “state shall not deny to ANY person equality before the law”. Therefore, the argument to strike it down is based upon the fact that the Indian state and Indian law is bound by the Indian constitution to not discriminate on the basis of gender.

The fundamental right under Article 15, which places a “prohibition of discrimination” on the grounds of sex also adds weight to the argument that Section 377 is against the tenets of the Indian Constitution. Additionally, Article 21 of the Indian constitution which says “NO PERSON shall be deprived of his personal life or liberty” also pours into the narrative that a legislative agenda that targets homosexuals for what they do in their private lives may against what the Indian Constitution envisions.

Final Verdict by Supreme Court on Section 377 of IPC

Section 377 ‘অসাংবিধানিক’ বলে খারিজ করে দিয়ে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন সাংবিধানিক বেঞ্চ আজ রায় দিয়েছে, ৩৭৭ ধারা সমকামীদের সমানাধিকারে ধাক্কা দিচ্ছে। প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘‘আমি যা, আমি তা-ই। আমাকে সে ভাবেই গ্রহণ করতে হবে।’’ পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চের সদস্যরা চারটি পৃথক রায়ে একই সুরে লিখেছেন, যৌন পছন্দ মানুষের স্বাভাবিক প্রবৃত্তি। তাই তার ভিত্তিতে ভেদাভেদ করা সংবিধানের ১৪তম অনুচ্ছেদের (নাগরিকদের সমানাধিকার ও আইনি নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে রাষ্ট্রকে) বিরোধী। বেঞ্চের অন্যতম বিচারপতি ইন্দু মলহোত্র বলেন, ‘‘বছরের পর বছর সমানাধিকার থেকে বঞ্চিত করার জন্য এলজিবিটি সম্প্রদায়ের কাছে ইতিহাসের ক্ষমাপ্রার্থনার দায় থেকে যায়।’’

একই সঙ্গে তাঁরা জানিয়েছেন, ‘‘ব্যক্তিগত পছন্দ স্বাধীনতার অন্যতম শর্ত। ভারতীয় সংবিধানে এলজিবিটি গোষ্ঠীর সদস্যরা বাকিদের মত একই অধিকার পাওয়ার যোগ্য।’’

Section 377 of IPC: Explained in Bengali

আরও পড়ুন:

Asian Games Important Question & Answer In Bengali

Tiger Reserve in India

Windlife Sanctuaries in India

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

eighteen − 4 =